কামাল- তারেক টেলি আলাপ; সংকট কাটেনি

আসন ভাগাভাগি নিয়ে বিএনপির সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমঝোতায় হস্তক্ষেপ করলেন তারেক জিয়া। আজ লন্ডন থেকে তিনি ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি ড. কামালকে অনুরোধ করেন যে, আসন ভাগাভাগি নিয়ে যেন ফ্রন্টের মধ্যে কোনো দূরত্ব তৈরি না হয়।

ড. কামাল হোসেনকে তারেক জিয়া বলেন যে, কে কতটি আসন পেল সেটা কোনো বড় কথা নয়। তাদের মূল লক্ষ্য হলো নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে পরাজিত করা। সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য থেকে জানা গেছে যে, ড. কামাল হোসেনের গণফোরামকে ১২ টি আসন দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। নাগরিক ঐক্যকে ৯টি এবং আ. স. ম. আবদুর রবকে ৫ টি আসন বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ গণফোরামের সদস্য না হলেও তাকে ধানের শীষ প্রতীক ইতিমধ্যেই দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক ড. কামাল হোসেনের গণফোরাম আসন্ন নির্বাচনে নূন্যতম ৩০টি আসন চেয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় তাতে গণফোরামকে ১০ টি আসন দিতে রাজি হয় বিএনপি। এর ফলশ্রুতিতে ঐক্যফ্রন্টে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়। এই অসন্তোষ মেটাতে তারেক হস্তক্ষেপ করেন। তিনি লন্ডন থেকে ড. কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ড. কামালের অবদান এবং বৃহত্তর ঐক্যের স্বার্থে তিনি ঐক্যফ্রন্টকে আরো ৫ টি আসন দিতে রাজি হয়েছেন বলে জানা গেছে। আসন নিয়ে সমঝোতা না হওয়ায় বিএনপি তার চুড়ান্ত মনোনয়ন তালিকা আজ প্রকাশ করেনি।

গণফোরাম থেকে যারা ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন বলে চূড়ান্ত হয়েছে, তাদের মধ্যে রয়েছেন অধ্যপক আবু সাইয়িদ। তিনি পাবনা-১ আসন থেকে নির্বাচন করবেন। এছাড়া এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসীন মন্টু এবং রেজা কিবরিয়াসহ আরো কয়েকজন ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে। তবে রেজা কিবরিয়া নির্বাচন করতে পারবেন কি পারবেন না তা এখন পর্যন্ত নিশ্চিত হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *