ক্ষমা চাইলেন রাস্তায় রিকশাচালককে পেটানো সেই নারী

রাস্তায় একজন রিকশাচালককে মারধর করার সময় সেই ঘটনার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া সুইটি আক্তার শিনু দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

মঙ্গলবারের ওই ঘটনা নিয়ে বিবিসি বাংলাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বুধবার দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি।

শিনু বলেন, ‘মিরপুরের রূপনগর আবাসিক এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। ওই ঘটনা নিয়ে আমি একদম স্যরি, যেহেতু আমার ভুল হয়ে গেছে। আমার এটা করা উচিত হয়নি। আমি স্যরি বলতেছি।’

এ ঘটনার পর তাকে দল থেকে বহিষ্কারের বিষয়ে তিনি বলেন, আমার ভুল হইছে। আমার দল ঠিক করেছে। দলের বাইরের কিছু লোক ভিডিও করে আমাকে অপব্যবহার করছে।

ভিডিও ভাইরাল হওয়া সম্পর্কে সুইটি আক্তার বলেন, এই ইলেকশনকে কেন্দ্র করে এইগুলা করতেছে। বেশি আমাদের বিপক্ষের লোকগুলা লেখালেখি করতেছে।

এই ঘটনার পরে ফেসবুকে বেশ কিছু ফেক আইডি তৈরি করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। কোনটিতে তাকে ‘বিএনপি নেত্রী’ আবার কোনটিতে তাকে ‘আওয়ামী লীগ নেত্রী’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়।

সামাজিক মাধ্যমে বিশেষ করে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে যেটুকু দেখা গেছে তার আগে কিছু ঘটনা ঘটেছে তা লোকজনের নজরে আসেনি বলেও তিনি দাবি করেন।

শিনু বলেন, বাসায় আমার বাচ্চা আছে এবং চুলায় রান্না চাপানো আছে- এটা বলার পরও রিকশাচালক তার কথা না শুনে ধীরে ধীরে চালাচ্ছিলেন এবং ভাঙ্গা জায়গা দিয়ে রিকশা চালাচ্ছিলেন। এরপর তিনি রিকশা থেকে পড়ে যান।

এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর এ নিয়ে পারিবারিক এবং সামাজিকভাবে লজ্জার মুখে পড়েছেন বলে জানান তিনি। শিনু বলেন, বলে বোঝাতে পারবো না মঙ্গলবার থেকে আমি কিসের মধ্যে আছি।

মঙ্গলবার বিকেলে ফেসবুকে একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে দেখা যায় এক নারী, এক তরুণ রিকশাচালকের ওপর চড়াও হয়েছেন। তিনি নিজেই ওই রিকশার যাত্রী ছিলেন। রিকশাচালকের প্যাডেলের গতি পছন্দ নয় ওই নারীর। তাই আরও জোরে চালাতে নির্দেশ দেন।

কিন্তু রিকশাচালক জানান, এর চেয়ে বেশি জোরে চালাতে পারবেন না। এতেই বিপত্তি চালকের। ক্ষিপ্ত নারী চড়াও হন চালকের ওপর। সবার সামনে রিকশা থেকে নেমে চালকের গায়ে হাতও তোলেন তিনি। আবারো রিকশায় উঠে হাতের ব্যাগ দিয়ে চালককে মারতে উদ্যত হন। ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে লাথি ছুঁড়তেও দেখা যায়। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও হয়।

ঘটনার ভিডিও দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, অনেক পথচারী ওই নারীর আচরণের প্রতিবাদ করছেন। তবে কোনো প্রতিবাদেই নিজের অবস্থান থেকে সরেননি তিনি। এক পর্যায়ে প্রবীণ এক পথচারীর ওপর হামলা চালান ওই নারী

বুধবার সকালে ঢাকা মহানগর উত্তরের ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আব্দুল হারুন ও সাধারণ সম্পাদক মো. মকবুল হোসেন তালুকদার স্বাক্ষরিত শিনুকে বহিষ্কারের একটি চিঠি গণমাধ্যমে পাঠানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *