বিরতির পর আবার ঈদের দুই নাটকে মিম

ঢাকা ও তার আশপাশের শুটিং হাউসগুলো ঈদের আগে দর্জির দোকানের মতো ব্যস্ত হয়ে ওঠে। ফুরসত নাই কোনো অভিনেতা-অভিনেত্রী-পরিচালক-ক্যামেরাম্যানের। ঈদের নাটক নিয়ে সবার এই ব্যস্ততা। সেই সাথে ব্যস্ত রয়েছেন অভিনেতা এফ এস নাঈম। আরেক ব্যস্ত নাট্য নির্মাতা সরদার রোকনের ঈদ উপলক্ষে ‘প্রিয়ন্তি’ ও ও ‘রোদেলা বৃষ্টি‘ নামের  নাটকে অভিনয় করলেন । তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন নাদিয়া মিম। ‘প্রিয়ন্তি’ নাটকটি রচনা করেছেন চয়ন দেব ও ‘রোদেলা বৃষ্টি‘ নাটকটি রচনা করেছেন সাইফুর রহমান কাজল।

ছবিঃ এফ এস নাঈম ও নাদিয়া মিম।

নির্মাতা জানান, নাঈম ও নাদিয়া মিম এর আগেও বহু নাটকে জুটি হয়ে অভিনয় করেছেন। সে ধারাবাহিকতায় প্রিয়ন্তি ও রোদেলা বৃষ্টি  নাটকে জুটি করা হয়েছে। নাটক দুটির শুটিং টানা ৪দিনে শেষ হবে। দুটি নাটকের গল্প অনেক সুন্দর আশা করছি ভালো কছিু দিতে পারবো দর্শকদের।

ছবিঃ নির্মাতা সরদার রোকন,নাঈম,মিম।

ঈদের জন্য নির্মিত ‘প্রিয়ন্তি’ নাটকে। সহশিল্পী হিসেবে আছেন নাদিয়া মিম। ওর সাথে আমার অনেক নাটক আছে । এর মধ্যে কাগজের ফুল ও হিরো নামের নাটকটি অনেক প্রশংসিত হয়েছে । ওর সাথে আরো কিছু কাজের প্লান আছে সামনে আমার বিশ্বাস ঐগুলো ও ভালো হবে।

ছবিঃ নির্মাতা ইভান সাইর ,সরদার রোকন,মিম।

নাটকটির প্রসঙ্গে নাঈম বলেন, নাটকের গল্পই হচ্ছে প্রাণ। তাই অভিনয়ের ক্ষেত্রে গল্পটা আমি আগে দেখে নেই। প্রিয়ন্তি নাটকের গল্প নিয়ে   আমি কিছু বলতে চাইনা। প্রচারে এলে দর্শকরা দেখলেই বোঝতে পারবেন। শুধু বলবো, দর্শকরা আশাহত হবেন না।

ঈদের কাজ প্রসঙ্গে নাঈম বলেন, অন্যান্য বছরের মতো এবারের ঈদের জন্যও বিরামহীনভাবে কাজ করে যাচ্ছি। দর্শকের কথা মাথায় রেখেই কষ্ট করে কাজ করে যাচ্ছি। দর্শককে বিনোদিত করার এ প্রয়াস চলমান থাকবে।

নাদিয়া মিম বলেন, ৬মাস বিরতির পরে আবার ঈদের নাটক দিয়ে কাজ শুরু করলাম। অনেকদিন পারিবারিক কিছু সমস্যা ছিলো তাই বিরতিতে ছিলাম । ঈদের নাটক দিয়ে আবার বিরতি কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করছি। আশা করছি এখন থেকে নিয়মিত হবো।

নাটকটি নিয়ে নাদিয়া মিম বলেন, গল্পটি অনেক সুন্দর। নাঈম ভাইয়ার সঙ্গে অভিনয়ের প্রতিটি মুহূর্ত দারুণ উপভোগ করছি। আশাকরি দর্শক ও উপভোগ করবেন।

নাটকটিতে নাঈম-নাদিয়া মিম ছাড়াও এতে আরও অভিনয় করেছেন ইভান সাইর, শিখা মৌ ও ইমু। ঈদের যে কোন একটি চ্যানেলে প্রচার হবে বলে জানান নির্মাতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *